fbpx

Blog

Does Tyre has any Expire Date

বাংলাদেশের বিখ্যাত একটি দৈনিক পত্রিকায় জনাব কাওসার আহমেদ চৌধুরী রাশিফল লেখার আগে একটি কথা লিখে থাকেন। আজ শুরুতেই সেই কথা টি জেনে নেই। কথাটি হল আপনার ভাগ্য  শতকরা ৯০ থেকে ৯৬  ভাগ আপনার হাতে বাকিটা নিয়তি। এখন এই লাইনটি পড়ে আপনাদের মনে হতে পারে রাশি ফলের কথা এখানে কেন। আসলে আজ আমরা যেই বিষয়টি নিয়ে কথা বলবো অনেক ক্ষেত্রেই আমরা তা ভাগ্যের দোষ দিয়ে থাকি। আর সেই বিষয়টি হল টায়ার ব্লাষ্ট বা টায়ার পাংচার। 

এমন অনেকেই আছেন যারা মহাসড়কে চলার পথে হঠাৎ গাড়ির চাকা ব্লাষ্ট বা টায়ার পাংচার হয়ে মারাত্মক দূর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। তারাও হয়তো বলেছেন সবই ভাগ্যের দোষ। কিন্তু আসলে কি তাই? চলুন এবার একটু বিস্তারিত জানার চেষ্টা করি।  

আমরা গাড়ির টায়ারকে ঠিক তখনই পরিবর্তন বা সার্ভিসিং করাই যখন এতে কোন ধরনের সমস্যা বোধ করি। কিছুটা আমাদের নিজেদের দাঁত এর মতো। সমস্যা না হলে আমরা দাঁতের ডাক্তার বা ডেনটিষ্টের কাছে খুব কমই যাই। ধরুন সমস্যা হবার পরই আপনি আপনার গাড়ির একটি টায়ার পরিবর্তন করবেন। দোকানদার কে বললেন যে ভালো একটি টায়ার দিতে। কিন্তু আপনি যে টায়ার টি কিনলেন এটি কত টুকু নিরাপদ সেটা কি খেয়াল করেছেন। 

করেছেন অথবা করেন নি। আমাদের দেশের বেশির ভাগ ড্রাইভার গনই তা খেয়াল করার প্রয়োজন মনে করেন না অথবা তিনি চেক করতে জানেন না। তবে একটু জানলে বিষয়টি খুবই সহজ। বাইক হোক কিংবা কার বা  বাস, ট্রাক যেই যান ই হোক না কেন চাকাতে সকল ইনফরমেশন থাকে। সাধারনত দেশ ভেদে টায়ার এর এক্সপায়ারি ডেট বিভিন্ন রকম হতে পারে। তবে সেটা ৪ থেকে ৮ বছর সর্বোচ্চ। এখন প্রশ্ন হল কোথায় লিখা থাকে এই এক্সপায়ারি ডেট। 

আপনার গাড়ির চাকায় খুব ভালো করে লক্ষ করলে দেখবেন চাকার দুই পাশের যেকোন একটি জায়গায় ইংরেজি কিছু লেটার যা হতে পারে 4W WV (সকল চাকাতেই এই ধরনের লেটার নাও থাকতে পারে) এবং এই শব্দ গুলোর পাশেই ষ্টার মার্ক করা আছে তার পরে কিছু ইংরেজি লেটার এবং চারটি সংখ্যা আছে। এর পরে আবার ষ্টার মার্ক করা আছে। 

চারটি সংখ্যার মধ্যে প্রথম দুইটি দ্বারা সপ্তাহের সংখ্যা বোঝায় এবং পরবর্তী দুইটি সংখ্যা দ্বারা কত সাল তা বোঝায়। ধরুন সেখানে লিখা আছে 0518 এর অর্থ এই দাঁড়াবে যে এটি ২০১৮ সালের ৫ নম্বর সপ্তাহে অর্থাৎ ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারী মাসের ১ম সপ্তাহে সেই টায়ারটি প্রস্তুত করা হয়েছে। আর এভাবেই যদি আপনি টায়ার উৎপাদনের তারিখ জেনে যান তাহলে সেখান থেকে ৪ কিংবা ৫ বছর (আমাদের দেশের ক্ষেত্রে) পড় আপনার গাড়ির টায়ার যে পরিবর্তন করতে হবে সেটি আপনি ঠিকই মনে রাখতে পারবেন। আর এই ছোট্ট ইনফরমেশন টুকু আপনাকে অনেক বড় ধরনের বিপদ থেকেও রক্ষা করবে। 

সকল নামী দামী কোম্পানীর টায়ার গুলতে এই ইনফরমেশন গুলো থাকবেই। তবে যদি কোন টায়ারে এই ইনফরমেশন টুকু না থাকে তাহলে বুঝে নিতে হবে এই টায়ার এর কোন নিশ্চয়তা নেই। এই কারনে সেই টায়ার এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। 

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on pinterest
Pinterest

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Some Recent Posts

Car

Engine not Starting

আজ গাড়ির একটি কমন সমস্যা নিয়ে (Vehicle Common Problem) আলোচনা করা যাক। যেই সমস্যাটিতে পড়েন নি এমন খুব কম মানুষ ই আছেন। আর সেটি হল

Read More »
Car

Car Air-condition system

চিন্তা করে দেখুনতো,গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছেন দীর্ঘক্ষণ কিন্তু আপনার গাড়ির এসি টি নষ্ট বা কাজ করছে না। কেমন হতো সেটি? চিন্তা করতেই দম বন্ধ হওয়া একটা

Read More »
Car

Piston Rings

আমরা সকলেই জানি গাড়ীর ইঞ্জিনের সিলিন্ডারের ভিতরে পিষ্টন উঠা নামা করে এবং সেখানে চারটি ষ্ট্রোক সম্পন্ন হয়। সেগুলো হলো সাকশান, কম্প্রেশন, পাওয়ার এবং এগজষ্ট। আর

Read More »